প্রচ্ছদ » সাহিত্য » বিস্তারিত

বেলারুশের সেভেতলানার সাহিত্যে নোবেল জয়

২০১৫ অক্টোবর ০৮ ১৭:৩৭:২২
বেলারুশের সেভেতলানার সাহিত্যে নোবেল জয়

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক : ১৪তম নারী হিসেবে ২০১৫ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেলেন সেভেতলানা এ্যালেক্সিভিচ। হাজারও মানুষের মৌখিক ইতিহাস রেকর্ডের মাধ্যমে সোভিয়েত ইউনিয়নের জীবনচিত্র অঙ্কনের জন্য বেলারুশের এই সাহিত্যিককে সর্বোচ্চ সম্মানসূচক পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

সেভেতলানা এ্যালেক্সিভিচ একজন নারী সাংবাদিক। তিনি মূলত একজন গ্রন্থসংকলক। নোবেল কমিটি তার রচনাকে ‘সমকালের যন্ত্রণা ও সাহসের সৌধ’ বলে অভিহিত করেছে।

৬৭ বছর বয়সী সেভেতলানা ১৯৪৮ সালে ইউক্রেনের ইভানো-ফ্রাঙ্কিভস্ক শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা বেলারুশের নাগরিক আর মা ইউক্রেনের নাগরিক। বাবার সামরিকবাহিনী থেকে অবসরের পর তারা বেলারুশে চলে যান। সেভেতলানা ১৯৬৭ সাল থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত ইউনিভার্সিটি অব মিনস্কে সাংবাদিকতায় পড়াশোনা করেন।

এ্যালেক্সিভিচ মূলত রাজনৈতিক সাহিত্যিক। তিনি তার জন্মভূমি এবং রাশিয়া সরকারের কট্টর সমালোচক। বৃহস্পতিবার সুইডিশ একাডেমির চেয়ারম্যান সারা ডেনিয়াস পুরস্কার ঘোষণার সময় বলেন, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের জনসাধারণের ওপর এ্যালেক্সিভিচ ৪০ বছর গবেষণা করেছেন। তার লেখা শুধু ইতিহাসই নয়, ধ্রুপদীও। তার নোবেল জয়ে ডেনিয়াস সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, সত্যিই তিনি অনন্য মেধাবী।

১৯৮৫ সালে তার প্রথম বই ‘ওয়ার্স আনওম্যানলি ফেস’ প্রকাশিত হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন এমন কয়েকশ’ নারীর সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে বইটি লেখা হয়।

প্রসঙ্গত, এ্যালেক্সিভিচ একজন ইংরেজী অনুবাদক হিসেবে সমধিক পরিচিত। চেরনোবিলের ভয়াবহ পারমাণবিক দুর্ঘটনার ওপর লেখা ‘ভয়েস ফরম চেরনোবিল’ এবং সোভিয়েত-আফগান যুদ্ধের প্রাথমিক তথ্য-উপাত্ত নিয়ে লেখা ‘বয়েজ ইন জিংক’ ইংরেজিতে অনুবাদ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগে সেভেতলানা সুইডেনের ‘পেন প্রাইজ’ পুরস্কার লাভ করেন। ১৯০১ সালে নোবেল পুরস্কার চালুর পর ১১২ জন সাহিত্যে নোবেল পেয়েছেন। আর ১৪তম নারী হিসেবে এ্যালেক্সিভিচ এবার এই গৌরব অর্জন করলেন।

(দ্য রিপোর্ট/আরপি/এজেড/অক্টোবর ০৮, ২০১৫)