প্রচ্ছদ » ফিচার » বিস্তারিত

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য

২০১৫ অক্টোবর ১৫ ১৫:২২:১৯
দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য

চঞ্চল ঘোষ : আফ্রিকা মহাদেশের ধনী দেশ হিসেবেই বিশ্বে পরিচিত দক্ষিণ আফ্রিকা। অর্থ ছাড়াও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যেও কম সম্পদশালী নয় দেশটি। বরং ভ্রমণপিপাসুদের কাছে রীতিমতো ‘স্বর্গ’ দক্ষিণ আফ্রিকা। সে কারণে সংক্ষেপে জেনে নিতে পারি দেশটির আকর্ষণীয় কয়েকটি প্রাকৃতিক স্থান সম্পর্কে—

মিস্টি মাউন্টেনস অব মাগোবাস্কলুফ : রহস্যমতায় জন্য মিস্টি মাউন্টেনস অব মাগোবাস্কলুফকে বলা হয় ‘ল্যান্ড অব দ্য সিলভার মিস্টি’। সবুজ পাহাড়ী এলাকায় অবস্থিত প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরা এই মাউন্টেনস। ফার্নস, মস, ফাঙ্গি, লিয়ানাস ও অজানা সব গাছের সবুজ কার্পেট রয়েছে এখানে।

কফি বে : পাথর যুক্ত মাটির রাস্তা, সবুজ ঘেঁষা পাহাড়, ক্লিফস আর মাঝে মাঝে ছোট বড় গর্ত মিলে যে নানন্দিক সৌন্দর্য তৈরি করেছে তা এক কথায় অনন্য। উইল্ড কোস্ট বা বন্য উপকূলের ‘কফি বে’ অবস্থিত ইস্ট লন্ডন ও পোর্ট এডওয়ার্ডের মাঝামাঝি স্থানে।

দ্য ওয়েটল্যান্ডস অব দ্য এলিফ্যান্ট কোস্ট : দেশটির উত্তরাঞ্চলের এই এলিফ্যান্ট কোস্টে হেঁটে বেড়ানো হচ্ছে সবচেয়ে বেশী আনন্দের। পাখির কলরব, কচ্ছপ ও সূর্যের মিষ্টি তাপের পরশে আহ্লাদিত হবেন ভ্রমণপিপাসুরা। কারণ দারুণ রূপের দৃশ্য আপনাকে মোহাচ্ছন্ন করে রাখবে।

ভ্যালি অব ডেসোলাশন : কারুতে ১০ কোটি বছর আগে গড়ে উঠেছে পাহাড়ের এই সুন্দর লীলাভূমি। ভ্যালির ফ্লোরগুলোর উচ্চতা ১২০ মিটারের মতো। এটি হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকার কামডেবু ন্যাশনাল পার্ক। দাঁড়িয়ে থাকা পাহাড়ের কলাম বা ভিমগুলোকে আপনাকে স্মরণ করিয়ে দেবে প্রাচীন কোনো অট্টালিকার কথায়।

রিচ টারসভেল্ড : মরুর রূপের যে বিশ্ব জোড়া খ্যাতি তা বুঝা যাবে দক্ষিণ আফ্রিকার রিচ টারসফেল্ডে আসলে। বেঁচে থাকার লড়াই বড় কঠিন প্রতিনিয়ত তা বুঝিয়ে দেয় রিচ। তবে এই লড়াইযের মাঝেও যে রয়েছে আরেক সৌন্দর্য! পাথর, বালু আর পানির অপ্রচতুলতাই এখানের মূল বৈচিত্র্য।

(দ্য রিপোর্ট/সিজি/আইজেকে/এইচ/অক্টোবর ১৫, ২০১৫)