প্রচ্ছদ » সম্পাদকীয় » বিস্তারিত

মোদির নেতৃত্বে হিন্দু ভারত

২০১৫ অক্টোবর ১৮ ০০:২৪:১৮

দাদরির ঘটনার রেশ এখনো মিলিয়ে যায়নি। বিরোধীদের সমালোচনার মুখে প্রতিদিন বিদ্ধ হচ্ছে নরেন্দ্র মোদির বিজেপি সরকার। ভারতের সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আমেরিকাও। এরই মধ্যে ফের নয়া বিতর্ক। গরু পরিবহনের অভিযোগে ট্রাকচালক এক মুসলিম যুবককে পিটিয়ে মারা হল হিমাচল প্রদেশের সিরমৌর জেলার সারাহান গ্রামে। গুরুতর আহত হন ওই যুবকের সঙ্গীরাও। যেন দাদরি ঘটনারই ছায়া।

নিহত ওই যুবকের নাম নোমান। মঙ্গলবার ট্রাকবোঝাই করে গরু নিয়ে যাওয়ার সময় হিমাচলে ট্রাক থামিয়ে নোমানসহ তার সঙ্গীদের বেধড়ক মারপিট করা হয়। পরদিন সকালে একটি ট্রাকের মধ্যে নোমানের ক্ষতবিক্ষত লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় মারাত্মক জখম হন নোমানের সঙ্গে থাকা চার মুসলিম যুবক। অভিযোগ উঠেছে, সাম্প্রদায়িক কারণেই নোমান ও তার সঙ্গীদের ওপর চড়াও হয়েছিল হিন্দুত্ববাদীরা।

কয়েক দিন আগে একটি দৈনিককে সাক্ষাৎকারে হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টার বলেছেন, ‘একমাত্র গোমাংস না খেলেই মুসলিমরা এ দেশে থাকতে পারবেন।’ হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, তার কথাকে বিকৃত করে দেখানো হয়েছে। এ-ও জানিয়েছেন, তিনি যদি কোনোভাবে কাউকে আঘাত করে থাকেন, সেক্ষেত্রে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছেন।

প্রথমে দাদরি, তার পর খাট্টারের মন্তব্য এবং সর্বশেষ হিমাচলের ঘটনা...। একের পর এক সাম্প্রদায়িক প্রতিহিংসা ও অসহিষ্ণুতার ঘটনা ঘটে চলেছে ভারতে।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে উত্তরপ্রদেশের দাদরি পরগনার বিসারায় মহম্মদ আখলাক নামে বছর পঞ্চাশের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ ওঠে গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে। গুরুতরভাবে জখম হন আখলাকের ছোট ছেলে দানিশও। তখনই অভিযোগ ওঠে এ সবের পেছনে বিজেপির হাত রয়েছে। স্থানীয় এক বিজেপি নেতাই আখলাকের পরিবারের বিরুদ্ধে খেপিয়ে তুলেছিল গ্রামবাসীকে। শুধু তা-ই নয়, মন্দিরের পুরোহিতকে টাকা দিয়ে আখলাকের বাড়িতে গোমাংস রাখার কথা ঘোষণা করতে বাধ্য করেছিল সে-ই।

কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা খাট্টারের ওই মন্তব্যকে অসাংবিধানিক ও দেশের গণতন্ত্রের পক্ষে এক দুঃখের দিন বলে দাবি করেছেন। অন্য এক বিরোধী নেতা বলেছেন, সিএম খাট্টারজি এখন থেকে ঠিক করে দেবেন ভারতীয় নাগরিক হওয়ার যোগ্যতা। উত্তর-পূর্বে তো গোমাংস খাওয়া হয়। তাদের ক্ষেত্রে কী হবে?

দাদরিতে আখলাক খুন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদি সরাসরি কিছু বলেননি। কিছু বলেননি হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টারের মন্তব্যের পরেও। এর পর হিমাচলের ঘটনা। প্রধানমন্ত্রী কিছু বলছেন না? ঘুরে ফিরে এই প্রশ্ন। তাহলে কি মোদির নেতৃত্বে ভারত হিন্দু সাম্প্রদায়িকতার কাছে আত্মসমর্পণ করতে চলেছে!