প্রচ্ছদ » শেয়ারবাজার » বিস্তারিত

সাড়ে ৩ মাসের মধ্যে সর্বনিম্নে সূচক

শেয়ারবাজারে ফের বড় দরপতন

২০১৫ অক্টোবর ১৮ ১৬:৫৯:৩৪
শেয়ারবাজারে ফের বড় দরপতন

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : ফের বড় ধরনের দরপতনের কবলে দেশের শেয়ারবাজার। রবিবার সপ্তাহের প্রথম দিনে উভয়বাজারে লেনদেনে অংশ নেওয়া প্রায় ৮০ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারের দর পতন হয়েছে। এর মধ্যে ৪ শতাংশেরও বেশি দর কমেছে ১৭ শতাংশ কোম্পানির।

ব্যাপকহারে কোম্পানিগুলোর দর কমে যাওয়ায় দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসই ব্রড ইনডেক্সের (ডিএসইএক্স) পতন হয়েছে ৬৮.৫৯ পয়েন্ট। দর পতনের এ হার ১.৪৬ শতাংশ। ফলে দিনশেষে সূচক গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪৬০৮.০৩ পয়েন্টে। গত সাড়ে ৩ মাসের মধ্যে এটিই সূচকের সর্বনিম্ন অবস্থান। এর আগে গত ৯ জুলাই সূচকের সর্বনিম্ন অবস্থান ছিল ৪৫৯৯ পয়েন্টে।

এর আগে গত সপ্তাহের প্রথম ও শেষ কার্যদিবসে বড় ধরনের দরপতন হয়েছিল শেয়ারবাজারে। ফলে গত সপ্তাহের লেনদেন শেষে ডিএসই সূচকের পতন হয়েছিল ১০৪ পয়েন্ট। দরপতনের সে ধারাবাহিকতায় চলতি সপ্তাহের প্রথম দিনও বড় ধরনের দরপতন হয়েছে বাজরে।

দরপতনের বিষয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় মার্চেন্ট ব্যাংক আইডিএলসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনিরুজ্জামান দ্য রিপোর্টে টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, গত সপ্তাহের আতঙ্ক থেকে এখনো বের হয়ে আসতে পারেনি বাজার। আতঙ্কগ্রস্ত বিনিয়োগকারীরা তাদের লোকসান কমাতে শেয়ার বিক্রি করে দিচ্ছেন। এতে বাজারে দর পতনের ঘটনা ঘটছে। তিনি আরও বলেন, লাফার্জ সুমরা, মবিল যমুনার মতো বড় মূলধনী কিছু কোম্পানির শেয়ারের দরপতন অব্যাহত থাকার কারণেও বাজারে তার প্রভাব পড়ছে।

লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩১৭টি ইস্যুর মধ্যে দিনশেষে দর বেড়েছে ৪৪টির, কমেছে ২৫০টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টির দর। এদিকে গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার লেনদেন শুরু হওয়া কেডিএস এক্সেসরিজের শেয়ারের দর রবিবার ১৬.৯০ শতাংশ কমে দিনশেষে ৭১.৩০ টাকায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন শুরুর প্রথম দিনে কোম্পানিটির শেয়ারের দর বেড়েছিল ৩২৩.৫০ শতাংশ। এদিকে রবিবার থেকে ডিএসই ব্রড ইনডেক্সে অন্তর্ভুক্ত হওয়া অলিম্পিক এক্সেসরিজের শেয়ারের দর ৭.৭৮ শতাংশ কমেছে। দিনের শুরুতে এ কোম্পানির শেয়ারের দর ছিল ৪৬.৩ টাকা। দিনশেষে তা কমে হয়েছে ৪২.৭০ টাকা।

এদিকে দরপতনের পাশাপাশি লেনদেনের পরিমাণও কমেছে। বৃহস্পতিবার ৪০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হলেও রবিবার তা ফের ৩০০ কোটি টাকায় নেমে এসেছে। দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৩১০ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবারের তুলনায় লেনদেন কমেছে ৯৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

লেনদেনের শীর্ষে রয়েছে লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট। দিনশেষে কোম্পানিটির ৪৬ কোটি ৬৫ লাখ ৪৬ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বিএসআরএম স্টিলের লেনদেন হয়েছে ১৮ কোটি ৮ লাখ ৬৬ হাজার টাকা। ১১ কোটি ৪৭ লাখ ৪৯ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে সাইফ পাওয়ারটেক।

লেনদেনে এরপর রয়েছে যথাক্রমে— কেডিএস এক্সেসরিজ, বেক্সিমকো ফার্মা, স্কয়ার ফার্মা, বিএসআরএম লিমিটেড, গ্রামীণফোন, ইউনাইটেড এয়ার, সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল।

দেশের অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সিএসসিএক্স ১৪৩.৭৮ পয়েন্ট কমে দিনশেষে ৮৫৬৭.৯৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হয়েছে ২৯ কোটি ৯৩ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৩৩টির, কমেছে ১৯২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির দর।

(দ্য রিপোর্ট/এমকে/সা/অক্টোবর ১৮, ২০১৫)