প্রচ্ছদ » ফুটবল » বিস্তারিত

ফুটবলারদের পদচারণায় মুখরিত চট্টগ্রাম

২০১৫ অক্টোবর ১৮ ২০:২১:৪৬
ফুটবলারদের পদচারণায় মুখরিত চট্টগ্রাম

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ চ্যাম্পিয়নশিপকে সামনে রেখে দেশ-বিদেশের ফুটবলারদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। বিদেশী ৫ দলের ফুটবলাররাই চট্টগ্রামে গিয়ে পৌঁছেছে। স্বাগতিক চট্টগ্রাম আবাহনীর বাইরে টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া অবশিষ্ট ২ দেশী দলও রবিবার রাতেই পৌঁছবে।

এই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে যাওয়া বিদেশী ক্লাবগুলো হল- কলকাতার দুই ঐতিহ্যবাহী ক্লাব মোহামেডান ও ইস্ট বেঙ্গল, পাকিস্তানের করাচি ইলেকক্ট্রিক এফসি, শ্রীলঙ্কার সলিড এফসি এবং আফগানিস্তানের ডি স্প্রিঙ্গার বাজান এফসি। তা ছাড়া ঢাকার ঐতিহ্যবাহী দুই জায়ান্ট আবাহনী লিমিটড ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেডও খেলছে এই প্রতিযোগিতায়। আর আয়োজক দল হিসেবে খেলছে চট্টগ্রাম আবাহনী। আগামী ২০ অক্টোবর ঢাকা আবাহনী ও করাচির মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে এই টুর্নামেন্ট।

টুর্নামেন্টের সবশেষ প্রস্তুতি নিয়ে আয়োজক কমিটির চিফ কো-অর্ডিনেটর রুহল আমিন তরফদার জানিয়েছেন ‘মাঠের বাইরের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। রবিবারই ঢাকা হয়ে চট্টগ্রামে পৌঁছছে পাঁচ বিদেশী ক্লাব। রাতেই চট্টগ্রামে যাচ্ছে ঢাকার দুই ক্লাবও।’

আয়োজকদের পাশাপাশি দেশীয় ক্লাবগুলোও প্রস্তুতি নিয়েছে নিজেদের মতো করে। চলতি মৌসুমে যারা লিগে যারা খেলেছে, তাদের বাইরেও ধারে কিছু ফুটবলার নিয়েছে দেশীয় ৩ দল।

মান্যবর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে রেলিগেশনের শঙ্কায় ছিল চট্টগ্রাম আবাহনী। লিগে তাদের অবস্থান নবম। তবে শেখ কামাল টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে দলের শক্তি যথেষ্ট পরিমাণ বৃদ্ধি করেছে। সেই স্কোয়াডের মাত্র ৪ জন রয়েছে এই দলে। শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র থেকে ধারে নিয়েছে জাতীয় দলের বেশ কয়েকজন তারকা ফুটবলারকে। স্ট্রাইকার জাহিদ হাসান এমিলি, মিডফিল্ডার জাহিদ হোসেন, হেমন্ত ভিনসেন্টরা প্রতিনিধিত্ব করবেন স্বাগতিক দলটির। থাকছেন গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটন, ফরোয়ার্ড মিঠুন চৌধুরীর মতো ফুটবলারও। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা থেকে দ ‘জন স্ট্রাইকার নিয়েছে চট্টগ্রাম আবাহনী।

তাই দল নিয়ে যারপরনাই খুশি চট্টগ্রাম আবাহনীর কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক। তিনি বলেছেন, ‘আমরা যে দল নিয়ে খেলব তা মোটেও খারাপ নয়। খেলোয়াড়দের সম্পর্কে সবকিছুই জানি আমি। তবে প্রস্তুতির জন্য পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যায়নি। আমরা ধাপে ধাপে এগুতে চাই। প্রাথমিক লক্ষ্য গ্রুপসেরা হিসেবে সেমিফাইনালে নাম লেখানো। এরপর ফাইনালে খেলতে চাই।’

আন্তর্জাতিক মানের এই টুর্নামেন্টে খেলার প্রস্তুতিতে পিছিয়ে নেই ঢাকা আবাহনীও। দলটির সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন শেখ রাসেলের দুই ডিফেন্ডার ওয়ালী ফয়সাল ও তপু বর্মণ। এ ছাড়া বিদেশী কোটায় ব্রাদার্সের কেষ্টার আকন ও বিজেএমসির স্যামসন ইলিয়াসুকে দেখা যাবে ঢাকা আবাহনীর জার্সিতে।

দলের সবাইকে না পেলেও ঈদের আগে দুই সপ্তাহ কোচ অমলেশ সেনের তত্ত্বাবধানে অনুশীলন করেছেন ফুটবলাররা। ঈদের ছুটি শেষে এখনো চলছে প্রস্তুতি পর্ব। তাই দল নিয়ে আশাবাদী ঢাকা আবাহনীর ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু। তিনি বলেছেন, ‘দল প্রস্তুত করতে সম্ভাব্য সব চেষ্টাই করেছেন কোচিং স্টাফরা। আমরা শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপে শিরোপার জন্যই লড়াই করব।’

প্রস্তুতিতে তুলনামূলক কম সময় পেয়েছে ঢাকা মোহামেডান। টিম বিজেএমসিতে খেলা জাতীয় দলের স্ট্রাইকার নাবিব নেওয়াজ জীবন ও ডিফেন্ডার ফয়সাল মাহমুদ ছাড়া শুরুতে তেমন কাউকে দলে টানতে পারেনি ঢাকার এই ঐতিহ্যবাহী ক্লাব। দলের মূল শক্তি গিনির ইসমাইল বাঙ্গুরাকে না পেলেও ৪ বিদেশীকে দলে ভেড়াতে সক্ষম হয়েছে মোহামেডান। যেটুকুই প্রস্তুতি হয়েছে, এরপরও নামের ভারে চমক দেখাতে চায় মতিঝিল ক্লাবপাড়ার দলটি।

(দ্য রিপোর্ট/কেআই/আরকে/অক্টোবর ১৮, ২০১৫)