প্রচ্ছদ » বিশেষ সংবাদ » বিস্তারিত

বড়পুকুরিয়ায় হচ্ছে ২৭৫ মেগাওয়াটের আরও একটি ইউনিট

২০১৫ অক্টোবর ১৮ ২১:০০:০৩
বড়পুকুরিয়ায় হচ্ছে ২৭৫ মেগাওয়াটের আরও একটি ইউনিট

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, দ্য রিপোর্ট : দেশে ক্রমবর্ধমান বিদ্যুৎ চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে প্রায় ২ হাজার ৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৭৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতার আরও একটি ইউনিট (৩ নম্বর ইউনিট) স্থাপন করা হচ্ছে।

ইতোমধ্যে নতুন ইউনিট নির্মাণের জন্য পাইলিংয়ের কাজও শুরু হয়েছে। ৩ নম্বর ইউনিটটি বাস্তবায়ন শেষে উৎপাদনে গেলে বড়পুকুরিয়া ২৫০ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের ক্ষমতা ৫২৫ মেগাওয়াটে গিয়ে দাঁড়াবে। ফলে দেশের উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলের বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করবে এবং লো-ভোল্টেজজনিত সমস্যা কমে আসবে।

২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যে ইউনিটটি উৎপাদনে যাবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এদিকে, ৩ নম্বর ইউনিটের পাইলিংয়ের কাজ শুরু হওয়ায় এলাকার ২ শতাধিক শ্রমিকের কর্মসংস্থান হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দিনাজপুরের পার্বতীপুরে অবস্থিত বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে আহরিত কয়লা জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করে খনিমুখে ২৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র গড়ে তোলা হয়। বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে দু’টি ইউনিট রয়েছে। প্রতিটির উৎপাদন ক্ষমতা ১২৫ মেগাওয়াট করে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্রটিকে সম্প্রসারণ করে ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ৩ নম্বর ইউনিট স্থাপন করা হচ্ছে।

সূত্র মতে, দরপত্রদাতার ঋণের (বায়ারস ক্রেডিট) আওতায় প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রস্তাব করে ২০১১ সালের ২৬ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হয়। এতে ৩টি বৈদেশিক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দরপত্র দাখিল করে। দরপত্রের শর্ত পূরণ না হওয়ায় একটি প্রতিষ্ঠানের দরপত্র বাতিল করা হয়। চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট এ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশন ও সাংহাই ইলেকট্রিক গ্রুপ কোম্পানি নিয়ে গঠিত সিএমসি/এসইসি কনসোর্টিয়াম এবং জয়েন্ট ভেঞ্চার হারবিন ইলেকট্রিক ইন্টারন্যাশনাল ও সিসিসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড চায়না এ দু’টি প্রতিষ্ঠানের দরপত্র প্রাথমিকভাবে বাছাই করা হয়। বায়ারস ক্রেডিটের আওতায় ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন ইউনিট স্থাপনের বিপরীতে জয়েন্ট ভেঞ্চার হারবিন ইলেকট্রিক ইন্টারন্যাশনাল ও সিসিসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি মূল আর্থিক প্রস্তাবে ২৪৮.৯৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (২ হাজার ৩৯ কোটি ৪৮ লাখ ৯৬ হাজার ৫ শ’ টাকা), বার্ষিক ৩ দশমিক ২৫ ভাগ (৩.৫%) সুদে ১০ বছরে সমান ২০ কিস্তিতে পরিশোধযোগ্য ও নির্মাণকালীন ৩ বছর গ্রেস পিরিয়ড প্রভৃতি শর্তে দর উদ্ধৃত করে। এতে প্রকল্পটি বাস্তবায়নে প্রতি কিলোওয়াট স্থাপন ব্যয় হবে ৯০৮.৯৮৬ মিলিয়ন ডলার (সুদসহ ১০০০.৬৮ মার্কিন ডলার)। অপর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিএমসি/এসইসি কনসোর্টিয়াম অনেক বেশী দর ও শর্ত আরোপ করে। তা ছাড়া তাদের কাজের মানও ভাল নয়। এর আগে সিএমসি/এসইসি কনসোর্টিয়াম বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে দু’টি ইউনিট স্থাপনে নিম্নমানের যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে। ফলে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি কখনই পূর্ণমাত্রায় উৎপাদনে যেতে পারেনি।

বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী (আইএ্যান্ডসি) মাহবুবুর রহমান দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে জয়েন্ট ভেঞ্চার হারবিন ইলেকট্রিক ইন্টারন্যাশনাল এবং সিসিসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির সাথে আর্থিক ও কারিগরি বিষয়ে পিডিবির টেন্ডার কমিটি নেগোসিয়েশন করে। এরপর ২০১২ সালের ২৩ অক্টোবর দরপত্রটি গ্রহণ করার সুপারিশ করে সরকারের অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। সরকারের ক্রয় কমিটি ২০১৩ সালের ১৩ মার্চ তা অনুমোদন করে। জয়েন্ট ভেঞ্চার হারবিন ইলেকট্রিক ইন্টারন্যাশনাল ও সিসিসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির সাথে পিডিবির চুক্তি স্বাক্ষর হয় ২০১৩ সালের ৪ জুলাই। চুক্তি কার্যকর হয় চলতি বছরের ১৫ জুলাই এবং আগস্ট মাস থেকে পাইনিংয়ের কাজ শুরু হয়। চুক্তি কার্যকরের দিন থেকে প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ ৩ বছর। ৩ নম্বর ইউনিটটিতে বয়লার ও গ্যাস টারবাইন দু’টি সিস্টেমই থাকবে। এর ফলে কয়লা বা গ্যাস জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করে ইউনিটটি চালু রাখা যাবে।

বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী সারথ চন্দ্র ভাদুড়ী দ্য রিপোর্টকে জানান, ২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যে ইউনিটটি উৎপাদনে যাওয়ার কথা রয়েছে। তবে যে গতিতে কাজ চলছে তাতে করে নির্ধারিত সময়ের ৩ মাস আগেই প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে। তৃতীয় ইউনিটটি বাস্তবায়ন শেষে উৎপাদনে গেলে দেশের উত্তর-পশ্চিম জোনের বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ হবে এবং লো-ভোল্টেজজনিত সমস্যা কমে আসবে। এ ছাড়া এখানকার বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়ে ট্রান্সমিশন লস কমাবে। ৩ নম্বর ইউনিটটি চালু রাখতে বছরে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ টন কয়লার প্রয়োজন হবে। এতে করে বড়পুকুরিয়া খনির কয়লার সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করা যাবে।

(দ্য রিপোর্ট/এএসটি/সা/অক্টোবর ১৮, ২০২৫)